ফাইল শেয়ারিংয়ের কিছু সাইটের খোঁজখবর

ফাইল শেয়ারিংয়ের কিছু সাইটের খোঁজখবর
ফাইলঅনলাইনে নানা কাজের মধ্যে এখন ফাইল শেয়ারিং দখল করে রেখেছে গুরুত্বপূর্ণ স্থান। কাউকে কোনো ফাইল পাঠাতেহলে আমাদের প্রথমেই দ্বারস্থ হতে হয় ইমেইল সার্ভিসের। তবে ইমেইল সার্ভিসগুলোতে সাধারণত খুবই সীমিত আকারের ফাইল সংযুক্ত বা অ্যাটাচ করার  সুযোগ থাকে। এই আকারবেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ২৫ মেগাবাইটের বেশি হয় না। এর চেয়েবড় ফাইল কাউকে পাঠাতে হলে তাই নির্ভর করতে হয় বিভিন্ন ফাইল শেয়ারিং সাইটের উপর। ফাইল শেয়ারিংয়ের এইসাইটগুলো গিগাবাইট আকারের ফাইলও শেয়ার করার সুযোগ  দেয়। এরকম কিছু ওয়েবসাইটের কথাই তুলে ধরা হলো এই লেখায়।
বে ফাইল
বে ফাইলে ৫ জিবি পর্যন্ত ফাইল আপলোড করার সুযোগ রয়েছে এবং এখান থেকে ফাইল ডাউনলোডে সংখ্যার কোনো সীমাবদ্ধতানেই। এর ইন্টারফেসে আপলোড করতে দেওয়া ফাইলের আপলোড গতি এবং প্রয়োজনীয় সময় দেখা যায়। তবে এখানে একসাথে একাধিক ফাইল আপলোড করার সুযোগ নেই। এখানে ফাইল আপলোড করে তার লিংকটি শেয়ার করা যায় ইমেইলে। তবে ৩০ দিনেরবেশি সময় সক্রিয় না থাকলে ফাইল সরিয়ে ফেলা হয়। http://bayfiles.com ঠিকানায় গিয়ে ব্যবহার করতে পারবেন এই কার্যকরী সাইট।ফাইল ড্রপার
ফাইল শেয়ারিংয়ের কাজে আরেকটি ভালো সাইটের নাম ফাইল ড্রপার। খুবই সহজে ব্যবহারযোগ্য এই সাইটেও ৫ গিগাবাইট পর্যন্ত ফাইল আপলোড করার সুযোগ রয়েছে। বিনামূল্যে নিবন্ধন করে এই সাইটে গিয়ে সহজেই ফাইল আপলোড করে তার লিংকশেয়ার করা যায় সকলের সাথে। এই সাইটেও অবশ্য একসাথে একাধিক ফাইল আপলোড করা যায় না। এই সাইটের ঠিকানাhttp://www.filedropper.com।

ইয়োরফাইল লিংক
নিবন্ধনের ঝামেলা ছাড়াই যে কয়েকটি ফাইল শেয়ারিং সাইট ব্যবহার করা যায়, তার মধ্যে অন্যতম একটি ইয়োরফাইল লিংক। এইসাইটেও ৫ গিগাবাইট পর্যন্ত ফাইল আপলোড করা যায় এবং এখান থেকে ফাইল ডাউনলোডের কোনো সীমাবদ্ধতা নেই। এখানেঅবশ্য আপলোড করা ফাইল ১৫ দিনের মধ্যে ডাউনলোড না করা হলে তা ডিলিট করে দেওয়া হয়। তবে এই সাইটে আপলোডেতুলনামূলকভাবে বেশি গতি পাওয়া যায়। নিচের লিংকে গিয়ে ব্যবহার করতে পারবেন এই সেবা http://www.yourfilelink.com।

গুগল ড্রাইভ
অনলাইন স্টোরেজ হিসেবে অন্যান্যদের সাথে পাল্লা দিতেই গুগল চালু করে গুগল ড্রাইভ। এখানে বিনামূল্যে ৫ গিগাবাইট পর্যন্ত ফাইলসংরক্ষণ করা যায়। তবে অর্থের বিনিময়ে অনেক বড় আকারের ফাইল এখানে সংরক্ষণ করা যায়। এই সেবার অন্যতম প্রধান সুবিধা হচ্ছে, এতে রাখা কোনো ফাইল ডিলিট করে দেওয়া হয় না। আপনি চাইলেই কেবল ফাইল ডিলিট করতে পারেন। এখানে আপলোডকরে রাখা যেকোনো ফাইলের লিংক সংযুক্ত করে দিতে পারেন ইমেইলে অথবা অন্য কোনো স্থানে। গুগল ড্রাইভ ব্যবহার করার জন্য অবশ্য আপনার গুগল অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে। সেক্ষেত্রে জিমেইল অ্যাকাউন্ট থাকলেই আর নতুন করে অ্যাকাউন্টখুলতে হবে না। https://drive.google.com ঠিকানায় গিয়ে ব্যবহার করতে পারবেন গুগল ড্রাইভের ফাইল শেয়ারিং সুবিধা।

অ্যাটাচ লার্জ ফাইলস
ইয়াহু মেইলে যারা একটু বড় আকারের ফাইল পাঠাতে চান, তারা ব্যবহার করতে পারেন ইয়াহু’র অ্যাপ্লিকেশন অ্যাটাচ লার্জ ফাইলস।ইয়াহু মেইলে প্রবেশ করলে বাম পাশে রয়েছে বিভিন্ন অপশন। এখানে অ্যাপ্লিকেশন ট্যাবটি সম্প্রসারিত করলেই পাওয়া যাবে অ্যাটাচলার্জ ফাইল অ্যাপ্লিকেশনটি। এখানে অবশ্য মাত্র ১০০ মেগাবাইট পর্যন্ত ফাইল আপলোডের সুযোগ রয়েছে। আর ৩০ দিন পর্যন্তএখান থেকে ফাইল ডাউনলোড করা যাবে।

Share This Post

Post Comment