আবিষ্কার হলো সুপার স্যাটার্ন

আবিষ্কার হলো সুপার স্যাটার্ন
সৌরজগতে শনি গ্রহের একটি বিশেষ স্থান আছে, আর তার কারণ হলো একে ঘিরে থাকা রিং বা বলয়গুলো। কিন্তু সম্প্রতি গবেষকেরা এবং এক এক্সোপ্ল্যানেট খুঁজে পেলেন যাকে ঘিরে আরও বিশাল পরিসরে অবস্থান করছে প্রায় ৩৭টি রিং।

শনি এমনকি বৃহস্পতি গ্রহের চাইতেও বড় J1407b নামের এই এক্সোপ্ল্যানেট আর এর রিং সিস্টেম শনির চাইতেও ২০০ গুণ বড়। ইউনিভার্সিটি অফ রচেস্টারের গবেষকেরা এই এক্সোপ্ল্যানেট আবিষ্কার করেন এবং একে তারা বলছেন “সুপার স্যাটার্ন”।

আমাদের সৌরজগতের বাইরে এই প্রথম এমন গ্রহ দেখা গেলো যার রয়েছে শনির মতো রিং সিস্টেম। এর ৩৭টি রিং এর প্রতিটির ব্যাস হতে পারে মিলিয়ন মিলিয়ন মাইল। ধারণা করা হচ্ছে পুরো রিংটির ব্যাস হতে পারে ৭৫ মিলিয়ন মাইল। শুধু এই রিং সিস্টেমের বস্তুকণার ভর হতে পারে পুরো পৃথিবীর সমান। এর পাশাপাশি এই এক্সোপ্ল্যানেটের থাকতে পারে নিজস্ব একটি চাঁদ। J1407b এর নিজের ভর বৃহস্পতির কমপক্ষে ৪ গুণ।

এই গ্রহটির রিং সিস্টেম এতো বড় যে এগুলোকে শনি গ্রহের চারপাশে সাজালে পৃথিবী থেকে খালি চোখেই তাদেরকে দেখা যাবে।

২০১২ সালে প্রথম এই গ্রহের অস্তিত্ব শনাক্ত করা হয়। পৃথিবী থেকে ৪২০ আলোকবর্ষ দূরে অনেকটা সূর্যের মতো একটি তারকা দেখতে পাওয়া যায়। এই তারকার আলোয় মাঝে মাঝেই বাধা পড়ছিলো। এই তারকাকে কেন্দ্র করে ঘুরতে থাকা J1407b এর রিংগুলোর কারণে বারবার বাধা পড়ে এই আলোয়। এই তারকাটি পৃথিবী থেকে এতোই দূরে যে ওই এক্সোপ্ল্যানেটের রিংগুলোকে সরাসরি পর্যবেক্ষণ করা সম্ভব নয়। তবে ওই তারকার সামনে দিয়ে যাবার সময়ে এই গ্রহটি তার আলোয় যে বাধা সৃষ্টি করে তা থেকে একটি মডেল তৈরি করতে পারেন তারা। এই মডেল থেকে গ্রহটির ভর এবং ওই রিং সিস্টেমের আকৃতি জানতে পারা যায়। এ ছাড়াও এই রিং সিস্টেমের মধ্য দিয়েই গ্রহটিকে প্রদক্ষিণ করে চলা একটি উপগ্রহের অস্তিত্বও বোঝা যায়।

Share This Post

Post Comment