চকলেটের প্রতি আসক্তি কমানোর চমৎকার একটি কৌশল

চকলেটের প্রতি আসক্তি কমানোর চমৎকার একটি কৌশল
বাচ্চাদের জন্য চকলেট খাওয়াটা স্বাভাবিক বলেই ধরা যায়। কিন্তু প্রাপ্তবয়স্ক একজন মানুষের জন্য অতিরিক্ত চকলেট খাওয়াটা হতে পারে ক্ষতিকর, বিশেষ করে তার ওজন যদি এর ফলে বাড়তে থাকে অতিরিক্ত। চকলেট খাওয়ার এই দুর্নিবার ইচ্ছে কমানোর রয়েছে সহজ একটি কৌশল।

চোখের সামনে চকলেট দেখলে লোভ সামলাতে পারেন না অনেকেই। কিন্তু এতে যদি ওজন বাড়তে থাকে বা বেড়ে যায় ডায়াবেটিস, তখন বুঝতে হবে এই আসক্তি নিয়ন্ত্রণের সময় এসেছে। কিন্তু কি করে? চকলেট আসক্তি সামলাতে আপনার কোনো টাকা খরচ করতে হবে না। শিখতে হবে না কোন যোগব্যায়াম, পান করতে হবে না বিস্বাদ কোনো ভেষজ পানীয়। অল্প কিছু সময়ে হাঁটার পেছনে ব্যয় করাটাই যথেষ্ট।

অস্ট্রিয়ার ইউনিভার্সিটি অফ ইনসব্রুক এর লারিসা লেডোকস্কি এবং তার গবেষক দলের পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, চকলেট বা এমন কোনো মিষ্টি বা উচ্চমাত্রায় ক্যালোরিযুক্ত খাবার খাওয়ার ইচ্ছে কমাতে মোটামুটি ১৫ মিনিট হাঁটা কাজে আসে।

গবেষণায় ৪৭ জন মানুষের ওপর পরীক্ষা করা হয় যাদের ওজন অতিরিক্ত বেশি। এদের গড় বয়স ছিলো ২৮। এরা সাধারণত প্রতিদিনই চকলেটের মতো মিষ্টি, উচ্চ ক্যালোরির খাবার খেয়ে থাকতেন। গবেষণার আগে তিন দিন তাদের এসব খাবার খাওয়া থেকে বিরত রাখা হয়। এরপর এদেরকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়। এক ভাগ একটি ট্রেডমিলে ১৫ মিনিট হাঁটেন। অন্য ভাগ চুপচাপ বসে থাকেন। এরপর তাদেরকে সেই সপ্তাহের আরেকদিন তাঁদের মানসিক চাপ বা স্ট্রেসের মাঝে ফেলে কিছু পরিমাণ মিষ্টি, উচ্চ ক্যালোরির খাবার পরিবেশন করা হয়। তাদেরকে বলা হয় একটি মিষ্টি হাতে নিয়ে ৩০ সেকেন্ড তা খাওয়ার ইচ্ছে দমিয়ে রাখতে হবে। তাদের হার্ট রেট এবং ব্লাড প্রেশার পরিমাপের মাধ্যমে এ সময়ে তাদের খাওয়ার ইচ্ছে পরিমাপ করা হয়।

গবেষকেরা দেখেন, স্ট্রেস বাড়ানোর মাধ্যমে যদিও চকলেট খাওয়ার ইচ্ছে বাড়ে, যারা কিছুটা সময় হেঁটেছিলেন তাদের মাঝে এই ইচ্ছে নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা বেশি থাকে।

সুতরাং আপনি যদি বুঝতে পারেন আপনার স্ট্রেস এবং এর সাথে সাথে উচ্চ ক্যালোরির জাঙ্ক ফুড খাবার ইচ্ছে বাড়ছে, তবে হাঁটতে বের হয় যান। আর পথে কোনো ফাস্ট ফুডের দোকান দেখলে বাড়িয়ে দিন হাঁটার গতি।

Share This Post

Post Comment