পার্লারে নয় ঘরে বসেই হবে ফেসিয়াল ?

পার্লারে নয় ঘরে বসেই হবে ফেসিয়াল ?

পার্লারে নয় ঘরে বসেই হবে ফেসিয়াল :

ত্বকে চমক আনতে ক্লিনজিং, টোনিং এবং ময়শ্চারাইজিংয়ের কোনো বিকল্প নেই। যেকোনো উৎসবে নিজেকে রূপ লাবণ্যময়ী করে সাজাতে ত্বকের এমন যত্ন চাই-ই। ত্বকের এই যত্ন করার পোশাকি নামই হল ফেসিয়াল।

নিজের ত্বকের অবস্থা জেনে সেই মতো পরিষ্কার করলেই হয়ে যাবে উপযুক্ত ফেসিয়াল। তাই আপনাকে যে শুধু পার্লারেই দৌড়াতে হবে তা নয়, ঘরে বসেও করতে পারেন ত্বকের যত্নে উপযুক্ত ফেসিয়াল। ঈদের আগেই নিজেকে সাজাতে জেনে নিন, ফেসিয়ালের প্রয়োজনীয় ধাপ গুলো-

ক্লিনজিং

সাধারণ বা মিশ্র ত্বক হলে কটন বল ঠাণ্ডা দুধে চুবিয়ে মুখ পরিষ্কার করে নিন। তারপর পানি দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে নিন। ড্রাই স্কিন হলে শসার রস ও ঠাণ্ডা দুধের মিশ্রণ কটন বলে ডুবিয়ে পরিষ্কার করে নিন। অয়েলি স্কিনে বেশি ময়লা জমে বলে ঠাণ্ডা দুধের সঙ্গে পুদিনাপাতার রস মিশিয়ে নিতে হবে

স্ক্রাবিং

ত্বক পরিষ্কারের পর কমলালেবুর খোসা ও চালের গুঁড়ার পেস্ট অথবা বার্লি ও ঠাণ্ডা দুধের মিশ্রণ স্ক্রাবার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। শুষ্ক ত্বকের ক্ষেত্রে চালের গুঁড়া ও দুধের সরের সঙ্গে একটু মধু মিশিয়ে নিন। তেলতেলে ত্বকে মসুর ডালবাটা ও কমলালেবুর খোসা দিয়ে স্ক্রাব করা যায়।

মিশ্র ত্বকের ক্ষেত্রে কর্নফ্লাওয়ার ও এক চিমটি কর্পূর কুসুম গরম পানিতে মিশিয়ে ব্যবহার করুন। মনে রাখতে হবে, স্ক্রাবিংয়ের সময় হালকা চাপ দিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ম্যাসাজ করতে হবে।

টোনিং

স্ক্রাবের পর নরমাল ও ড্রাই স্কিনের জন্য শুধু গোলাপজল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিলেই হবে। তেলতেলে ত্বকে পুদিনা পাতা, শসা ও লেবুর রস ভালো করে মিশিয়ে মাখতে পারেন। মিশ্র ত্বকের জন্য টমেটো রস, শসার পেস্ট ও গোলাপজলের মিশ্রণ ভালো টোনার হিসেবে কাজ করে।

ফেসপ্যাক

টোনিং এর পরে সাধারণ ত্বকের জন্য দুই চামচ বেসন, দুই চামচ মধু, কচি গাজর পেস্ট ও গোলাপজল একসঙ্গে মিশিয়ে মাস্ক তৈরি করে নিন। মিশ্র ত্বকের জন্য গমের ছাতু, মধু, হাফ চামচ বাদাম তেল ও পানি মিশিয়ে প্যাক তৈরি করতে হবে।

তেলতেলে ত্বকের জন্য মসুর ডালবাটার সঙ্গে ডিমের সাদা অংশ, শসার রস, লেবুর রস ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। শুষ্ক ত্বকের জন্য এক টুকরো পাউরুটি দুধে ভিজিয়ে নরম করে তার সঙ্গে পাকা কলা চটকে নিন।

এতে এক চামচ মধু ও এক চামচ চন্দন গুঁড়া মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এবার ত্বকের উপযুক্ত মাস্কটি মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানির ঝাঁপটা দিয়ে ধুয়ে নিন।

ময়শ্চারাইজিং

সবশেষে সাধারণ ও মিশ্র ত্বকে স্কিনে ঘৃতকুমারির জেল ও সামান্য মধু মিশিয়ে লাগানো যেতে পারে। তেলতেলে ত্বকে আপেল কুচিয়ে তার সঙ্গে মধু মিশিয়ে লাগিয়ে পরে ধুয়ে নিন।

শুষ্ক ত্বকে স্কিনে মধুর সঙ্গে নারকেল তেল মিশিয়ে লাগালে বেশ উপকার পাবেন। ব্যস পার করে এলেন ঘরোয়া পদ্ধতিতে ফেসিয়ালের সবকটি ধাপ। তাই এখন থেকে নিজ হাতেই করতে পারেন ত্বকের উপযুক্ত ফেসিয়াল।

Share This Post

Post Comment