দাঁতের মাড়ি সুস্থ রাখতে চাইলে যে কাজগুলো একান্ত জরুরী

দাঁতের মাড়ি সুস্থ রাখতে চাইলে যে কাজগুলো একান্ত জরুরী

দাঁতের মাড়ি মুখের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ যা আমাদের দাঁতগুলোকে সুন্দর ভাবে ধরে রাখে। তাই দাঁতের মাড়ির সুস্থতা নিঃসন্দেহে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। দাঁতের মাড়ির সঠিক যত্ন না নিলে বিভিন্ন ধরণের অসুখ যেমন- জিঞ্জিভিটি, ইনফেকশন এবং আরো অনেক ধরণের অসুখ হয়ে থাকে যাকে পেরিওডন্টাল ডিজিজও বলা হয়ে থাকে। তাই দাঁতের মাড়িতে কোন সমস্যা হলে একে অবহেলা করা ঠিক নয়, কারণ সঠিক ভাবে চিকিৎসা করা না হলে মারাত্মক সমস্যা হতে পারে যার ফলে আপনি আপনার দাঁতগুলো হারাতে পারেন এবং আপনার স্বাস্থ্যের উপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। কিছু ঘরোয়া উপায়ের মাধ্যমে দাঁতের মাড়ির যত্ন নেয়া যায়। আসুন সেই উপায়গুলো সম্মন্ধে জেনে নিই আজ।

১। চাপ কমান
মানসিক চাপ ও দাঁতের স্বাস্থ্যের মধ্যে যোগসূত্র আছে। এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, যারা মানসিক চাপের মধ্যে থাকেন তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় যার ফলে পেরিওডন্টাল ডিজিজ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে পারে না । গবেষকরা লক্ষ্য করেছেন যে, আর্থিক দুশ্চিন্তা পেরিওডন্টাল রোগের জন্য দায়ী। তাই মানসিক চাপ কমান, এর জন্য হালকা ব্যায়ামও চর্চা করুন।

২। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খান
কোলাজেন টিস্যু দাঁতের মাড়িকে শক্ত করে। কোলাজেন টিস্যু উৎপাদনের জন্য ভিটামিন সি প্রয়োজন। তাই ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার যেমন – তরমুজ, ব্রকলি, আলু, পেঁয়াজ, টমেটো, লেবু, কমলা, পেয়ারা, পেঁপে ইত্যাদি খাওয়া প্রয়োজন।

৩। ভিটামিন ডি গ্রহণ করুন
ভিটামিন ডি এর অভাবে হাড়ের ক্ষয় হয়। হাড় ক্ষয় বৃদ্ধি পেলে মাড়ি ফুলে যেতে পারে। ভিটামিন ডি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে প্রদাহ কমাতে সহায়তা করে। ভিটামিন ডি এর সবচেয়ে বড় উৎস হচ্ছে সূর্যের আলো, তাই সপ্তাহে অন্তত দুইদিন সূর্যের আলোতে ১৫-২০ মিনিট হাঁটুন এবং ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার যেমন- ডিম,দুধ,চর্বিযুক্ত মাছ,কড লিভার তেল ইত্যাদি খান।

৪। নিমের মাউথ ওয়াশ ব্যবহার করুন
নিমে জীবাণুনাশক ও ছত্রাক নাশক উপাদান আছে যা মাড়িকে সুস্থ রাখার জন্য প্রয়োজনীয়। মুখকে জীবাণু মুক্ত রাখতে নিমের মাউথ ওয়াশ ব্যবহার করুন। তবে মাউথ ওয়াশ নিয়মিত ব্যবহার করলে দাঁতে দাগ পড়ে যেতে পারে তাই ডেন্টিস্টের মতামত নিয়ে নির্ধারিত সময় পর্যন্ত ব্যবহার করতে হবে।নিম দিয়ে তৈরি টুথপেস্ট ও ব্যবহার করতে পারেন।

৫। নারিকেল তেল ব্যবহার করুন
নারিকেল তেলে ব্যাকটেরিয়া ধ্বংসকারী উপাদান আছে যা মুখের ভেতরের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াকে নির্মূল করতে পারে। আপনার টুথ পেস্টের সাথে মিশিয়ে অথবা সরাসরি মাড়ি ও দাঁতে নারিকেল তেল মালিশ করতে পারেন।

এছাড়াও ক্যালসিয়াম, ভিটামিন এ, কে, ও ই সমৃদ্ধ খাবার এবং শাকসবজি ও ফল খান। সবজি ও ফলে যে অ্যান্টিওক্সিডেন্ট থাকে তা মুখের ভেতরের ময়লা জমতে দেয় না। নিয়মিত সকালে নাস্তার পরে ও রাতের খাবারের পরে দাঁত ব্রাশ করুন এবং প্রতি ৬ মাস পরপর ডেন্টিস্ট এর কাছে গিয়ে চেক আপ করুন।

Share This Post

Post Comment