আটটি পরিচিত প্রযুক্তিপণ্য যা কিনতে কাড়ি কাড়ি অর্থ খরচ হবে

আটটি পরিচিত প্রযুক্তিপণ্য যা কিনতে কাড়ি কাড়ি অর্থ খরচ হবে

আধুনিক স্মার্টফোন, ট্যাবলেট এবং কম্পিউটার প্রায় সবার হাতে হাতে এবং ঘরে ঘরে দেখা যায়। গুণগতমান বুঝে এই প্রযুক্তি পণ্যগুলোর দাম কম-বেশি হয়ে থাকে। অতিপরিচিত ব্র্যান্ড এবং পণ্যের মধ্যেও কয়েকটির দেখা মেলে যা কিনতে গেলে মোটা অংকের অর্থ গুণতে হবে আপনার। এসব প্রযুক্তি পণ্যের বিলাসি ডিজাইন এবং গুণগত মান এতোটাই ভালো যে তা কেনার কথা অনেকেই চিন্তাই করতে পারেন না। এখানে দেখে নিন এমনই ৮টি গেজেটের খবর।
১. আইফোন অনেকেই ব্যবহার করেন। গান শোনার জন্য বেশ দাম দিয়ে হেডফোন বা স্পিকারও কেনেন অনেকে। কিন্তু অ্যারোসিস্টেম ওয়ান আইফোন স্পিকার কি দেখেছেন কোথাও? কয়েক শো ডলার খরচ করে ভালো মানের হেডফোনসমেহ আইফোন পাওয়া গেলেও এই স্পিকার কিনতে খরচ হবে ১ হাজার ১১৫ ডলার। ফ্রেঞ্চ কম্পোজার মাইকেল জার এবং তার দলের গবেষণা থেকে তৈরি হয়েছে বিশেষ এই আইফোন স্পিকারটি।

 

২. আজ থেকে ছয় বছর আগে বাজারে আসে অপটিমাস ম্যাক্সিমাস কিবোর্ড। তখনই তার দাম ছিলো দেড় হাজার ডলার। এই কিবোর্ডের বোতামগুলোর প্রত্যেকটিকে প্রোগ্রাম করা যাবে। অর্থাৎ, যেকোনো বোতামের কাজ বদলে তাতে অন্য কাজের কমান্ড দেওয়া যাবে। প্রতিটি বাটনের নতুন কাজের সময়ও বেঁধে দেওয়া যায়।

 
৩. উইন্ডোজ ৮ রয়েছে এমন একটি ট্যাবলেটের দাম আর কতোই হবে? কিন্তু প্যানাসনিকের ৪কে উইন্ডোজ ৮ মডেলের ট্যাবলেটটির দাম ৬ হাজার ডলার। এটি প্যানাসনিকের রাগড লাইন পণ্যের একটি ট্যাবলেট। অর্থাৎ, এটি পানিতে বা বালিতে কিছু হবে না। আড়াই ফিট থেকে ওপর থেকে পড়লেও কিচ্ছু যায় আসে না। এই টাফপ্যাডে রয়েছে সুপার শার্প ৩৮৪০x২৫৬০ পিক্সেল রেজ্যুলেশন।
৪. একটি ল্যাপটপ কেনার জন্য যদি ১০ হাজার ডলার বাজেট করতে পারেন, তবে একটিই কিনতে পারবেন। এর নাম ইগো লাইফস্টাইল এমারাল্ড পিসি নোটবুক কম্পিউটার। হাইটেক এবং ফ্যাশনের অপূর্ব মিলন ঘটেছে এই ল্যাপটপে। উইন্ডো ভিস্তায় চলে এটি। এর বাইরের কাভার বদলানো যায় যেগুলো তৈরি হয়েছে ইতালিয়ান কুমিরের চামড়া দিয়ে। কিনতে হলে চলে যান এই লিঙ্কেhttp://www.saksfifthavenue.com/main/ProductDetail.jsp?PRODUCT%3C%3Eprd_id=845524446207656
৫. ইংল্যান্ডে তৈরি ভার্চুর সিগনেচার টাচ মোবাইলটির দাম পড়বে ১৮ হাজার থেকে ২০ হাজার ডলার। গ্রেড ফাইভ টাইটানিয়াম অ্যালয় থেকে তৈরি হয়েছে মেটাল বডি। কাভার তৈরি হয়েছে অ্যালিগেটরের চামড়া দিয়ে। হালকা হলেও এর ধাতব দেহ স্টেইটলেস স্টিল অপেক্ষা আড়াই গুণ বেশি শক্ত। এর স্ক্রিন তৈরি হয়েছে দাগ ও আঁচড় পড়ে না এমন ক্রিস্টাল দিয়ে।

৬. কয়েক বছর আগে বিলাস পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান লুভালজিও এমন এক উচ্চ প্রযুক্তির ল্যপটপ বানিয়েছে যার দাম এক মিলিয়ন ডলার। ২০০৭ সালে সি নেটের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, এর সঙ্গে রয়েছে একটি স্ক্রিন ক্লিনার, সলিড-স্টেট স্টোরেজ আর একটি ব্লু-রে প্লেয়ার। প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটে গিয়ে ল্যাপটপটি দেখতেও একটি পাসওয়ার্ড নিতে হবে।

৭. ডিজাইনার স্টুয়ার্ট হাগিসের তৈরি অ্যাপলের আইপ্যাড ২। এতে গেঁথে দেওয়া হয়েছে ১২.৫ ক্যারেটের হীরে। এর সামনের দিকের মূল কাঠামোটি তৈরি হয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে পুরনো পাথর দিয়ে, প্রায় ৭৫ মিলিয়ন বছরের পুরনো অ্যামোলাইট পাথর থেকে। এর সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে ৬৫ মিলিয়ন বছরের পুরনো টি-রেক্স ডাইনোসারের হাড়। স্বাভাবিকভাবেই এর দাম পড়বে ৫ মিলিয়ন ডলার।
৮. একই ডিজাইনারের তৈরি আরেক বিস্ময় ব্ল্যাক ডাইমন্ড আইফোন ৫ যার দাম ১০ মিলিয়ন ডলার। এই ফোনের দেহ তৈরি হয়েছে সলিড গোল্ড দিয়ে। এর মাঝে খচিত হয়েছে ডিপ-কাট ব্ল্যাক ডায়মন্ড। এর একটি বানাতে টানা ৯ সপ্তাহ সময় ব্যয় হয় নির্মাতার। সূত্র : বিজনেস ইনসাইডার

 

 

Share This Post

Post Comment