আপনি কি মেকআপ না তুলে প্রায়ই ঘুমিয়ে পড়েন? জেনে নিন এর ক্ষতিকর দিক””

আপনি কি মেকআপ না তুলে প্রায়ই ঘুমিয়ে পড়েন? জেনে নিন এর ক্ষতিকর দিক””

আমরা নারীরা কমবেশি মেকআপ করেই থাকি। তা চোখে সামান্য কাজল লাগানোই হোক কিংবা কোন অনুষ্ঠানে যাওয়ার জন্য ভারী মেকআপই হোক, এই বিষয়টিতে খুব নজর দেয়া উচিত। মেকআপ করার প্রধান উদ্দেশ্যই হল আমাদের চেহারার খুঁতগুলো ঢেকে আমাদের চেহারার প্লাসপয়েন্ট গুলো হাইলাইট করা। কিন্তু মেকআপ করার সময় যতটা উৎসাহ থাকে আমাদের মধ্যে, দিন শেষে বা অনুষ্ঠানের শেষে মেকআপ পরিষ্কার করার ব্যাপারে তেমন আগ্রহ আমাদের থাকেনা। আর সমস্যাটা হয় এখানেই। আমরা বেশীরভাগ সময় মনে করে থাকি সামান্য কাজল আর লিপিস্টিক রয়ে গেলে কী-ই বা এমন ক্ষতি হবে!

মাঝে মাঝেই মেকআপ না তুলে ঘুমিয়ে পড়েন? এর উত্তরে অনেকেই হ্যাঁ বলবেন। কখনও হয়তো খুব ক্লান্ত থাকার কারণে আর মেকআপ তুলতে ইচ্ছা করেনা। কিংবা মেকআপের কথা হয়তো ভুলেই গিয়েছেন। এমনটা মাঝে মধ্যে হলে কোন সমস্যা নেই, কিন্তু এই ব্যাপারটি যদি আপনার অভ্যাসে পরিনত হয়ে গেলে ক্ষতি কিন্তু আপনার ত্বকেরই হবে। ভাবছেন একদিন মেকআপ না তুললে ত্বকের কী আর এমন ক্ষতি হবে? কিন্তু আমাদের ত্বক এতো বেশি স্পর্শকাতর যে সামান্য অবহেলার কারণে দেখা দিতে পারে নানা রকমের সমস্যা। মেকআপ করার পর তা না তুললে ত্বকের পোর( ছিদ্র) বন্ধ হয়ে যায়। মেকআপ ঘাম বের হয়ে বাধা দেয় যার ফলে ত্বকের কোষে ঠিক ভাবে অক্সিজেন পৌছায় না। এছাড়াও ত্বকের থেকে সেবাম (যা এক ধরনের তৈলাক্ত তরল) নিঃসৃত হয় যার ফলে আমাদের ত্বক আদ্রতা ধরে রাখতে পারে।

তাই দীর্ঘদিন মেকআপ না তুলে ঘুমানোর অভ্যাস তৈরি হয়ে গেলে অবধারিতভাবে ত্বকে দেখা দিতে পারে ব্রনের সমস্যা। এছাড়াও ত্বকে দেখা দিতে পারে র‍্যাশ ও অস্বস্তি। আর আমার কেউই চাইনা আমাদের ত্বকে কোন সমস্যা হোক। তাই ত্বকের এই সামান্য প্রয়োজনগুলোকে অবহেলা করা মোটেও উচিত না। ত্বকের হাইজিন সম্পর্কে সামান্য সচেতন থাকলেই খুব সহজেই ত্বককে সুন্দর, সতেজ ও স্বাস্থ্যজ্জল রাখা যায়।

কী করবেন

আমরা সবাই সুন্দর স্বাস্থ্যজ্জল ত্বক পেতে চাই। তবে তার জন্য অবশ্যই প্রয়োজন ত্বকের সঠিক যত্নের। প্রতিদিন অন্তত দু’বার ভাল ক্লিনজার দিয়ে ত্বক পরিষ্কার করুন। অবশ্যই রাতে শুতে যাওয়ার আগে মেকআপ তুলে নেবেন তা চোখের সামান্য কাজল হলেও। যাঁদের প্রায়ই খুব বেশি মেক-আপ করতে হয় তারা অবশ্যই মাসে অন্তত একবার ভালো কোন পার্লারে গিয়ে ফেশিয়াল করাতে ভুলবেন না। বাড়িতে আপনার ত্বক অনুযায়ী নিয়মিত ক্লেনজিং, টোনিং এবং ময়শ্চারাইজিং করবেন।

মাসে অন্তত দুবার স্ক্রাবার দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে নেবেন। তবে যাঁদের ব্রনের সমস্যা আছে তাঁরা স্ক্রাবার ব্যবহার করবেন না। আমাদের চোখের চার পাশের ত্বক অনেক নরম ও স্পর্শকাতর থাকে। তাই চোখের মেকআপ আলতো করে মুছে ফেলবেন। চোখের মেকআপ তোলার জন্য বিশেষ মেকআপ রিমুভার পাওয়া যায়। সেটাই ব্যবহার করুন কিংবা এক টুকরো তুলোতে লোশন নিয়ে চোখের চারপাশ হালকা করে ম্যাসাজ করে চোখের মেকআপ তুলে নিন।

Share This Post

Post Comment