ব্রোনো দূর করে হয়ে উঠুন আরো ফর্সা

ব্রোনো দূর করে হয়ে উঠুন আরো ফর্সা

ব্রোনো দূর করে এরোমা ফেস প্যাক

আপনার কি তৈলাক্ত ত্বক? আপনি কি ব্রোনোর সমস্যায় ভোগেন? এরোমো থেরাপির মাধ্যমে আপনি এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন৷এরোমা থেরাপিতে অয়েল থাকে৷ হয়ত ভাবছেন এই অয়েল আপনার ত্বকের তৈলাক্ত ভাবকে বাড়িয়ে ব্রোনোর সমস্যা বাড়াবে৷ এই ধারণা একেবারেই ভুল৷ এরোমা থেরাপি ত্বকের জন্য খুব উপকারী৷

এরোমা অয়েল হল অ্যান্টিসেপ্টিক৷ এর মধ্যে অ্যান্টিব্যাকটোরিয়াল পদার্থ রয়েছে৷ তৈলাক্ত ত্বকের জন্য এই থেরাপি খুবই ফলদায়ী৷

এক চামচ কেয়োলিন পাউডারের সঙ্গে এক চামচ আযুর্বেদিক পিম্পল ফেস প্যাক,এক এক ফোঁটা কেমোমিলা, ল্যাভেন্ডার, জুনিয়ার পাচোলী, লাইম এরোমাকে একসঙ্গে মিশিয়ে নিন৷ এই এসেন্থিয়াল ওয়েলকে এক ফোঁটা ফেস মাস্কের মধ্যে মেশান ৷ এবার এটাকে অ্যালোবেরা জেলের সঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগান৷ মুখে লাগানোর পরে 20 মিনিট পর্যন্ত রাখুন৷ তারপরে মুখ ধুয়ে ফেলুন৷

এই প্যাকটাকে প্রতিদিন দুবার মুখে লাগান৷

ফর্সা হবার প্যাক

মুসুর ডালের প্যাক লাগিয়ে আপনি ফর্সা হতে পারবেন৷ দীর্ঘদিন যদি নিয়ম মেনে মুখে মুসুরির ডালের প্যাক লাগান তাহলে সহজেই আপনার মুখের কালো ছাপটা দূর হয়ে যাবে৷ চলুন এই প্যাক কি করে তৈরী করবেন তা জেনে নিই৷

* মুসুরির ডালকে রাতে দুধের মধ্যে ভিজিয়ে রাখুন৷ সকাল বেলায় ডালটা পিষে মুখে লাগান৷ রোজ যদি মুখে এই প্যাকটা লাগান আপনার চেহারায় কালো ভাবটা দূর হয়ে যাবে৷

* মুসুরির ডাল পিষে তার মধ্যে মধু এবং দই মিশিয়ে মুখে লাগান৷ এতে আপনার ত্বক সতেজ হবে৷

* যদি মুখে বা পীঠে দাগ হয় মুসুরির ডালের মধ্যে চালের পেস্টটা মিশিয়ে ওর মধ্যে চন্দন পাউডার,মুলতানী মাটি, কমলা লেবুর শুকনো চোকলা মিশিয়ে পেস্ট তৈরী করুন৷ এর মধ্যে 2 চামচ শশার রসও মেশাতে পারেন৷ মুখে এবং শরীরের নানা স্থানে ঐ পেস্টটা লাগান৷ শুকিয়ে যাওয়ার পরে ধুয়ে ফেলুন৷
*মুসুর ডাল গুড়ো করে তার মধ্যে ডিমের হলুদ অংশটা মেশান৷ রোদের মধ্যে এই পেস্টটা শুকিয়ে শিশির মধ্যে ভরে রেখে দিন৷ প্রতিদিন রাতে শোওয়ার আগে 2 ফোটা লেবুর রসের সঙ্গে 1 চামচ দুধ মিশিয়ে মুখে লাগান৷ আধ ঘন্টা রাখার পরে মুখটা ধুয়ে ফেলুন৷ এতে আপনার মুখের রঙ ফর্সা হয়ে যাবে৷

Share This Post

Post Comment