কন্সিলার কখন ব্যাবহার করবেন

কন্সিলার কখন ব্যাবহার করবেন
অনেকেই দ্বিধান্বিত হয়ে যান যে আগে কন্সিলার ব্যবহার করবেন নাকি আগে ফাউন্ডেশন তারপর কন্সিলার। অনেকেই হয়ত শুরুর দিকে এই দুটি জিনিসের পার্থক্য বুঝতে পারেন না। ফাউন্ডেশন মেক আপ এর বেইস তৈরি করে দেয় আর কন্সিলার মুখের দাগ ছোপ সহ অন্যান্য খুঁতগুলো ঢেকে দেয়। সাধারণভাবে আমরা, ময়েশ্চারাইজার < ফাউন্ডেশন < কন্সিলার < পাউডার এই ভাবে নিজের বেইস করে থাকি। তবে ফাউন্ডেশন আর কন্সিলার এর মধ্যে কোনটি আগে ব্যবহার করবেন, এটি নির্ভর করে তিনটি জিনিসের ওপর…………..

১. আপনার ত্বকের ধরন

২. কী ধরনের কন্সিলার আপনি ব্যবহার করছেন (লিকুইড/ ক্রিম/স্টিক)

৩. আপনার ত্বকের দাগের ধরন অর্থাৎ কি ধরনের দাগ বা খুঁত আপনি ঢাকতে চাচ্ছেন

যদি আপনার ত্বকে খুব বেশি দাগ না থাকে তবে প্রথমে ফাউন্ডেশন দিন।  প্রাথমিকভাবে ফাউন্ডেশন আপনার দাগ কিছুটা ঢেকে দেয়। তবে এটি নির্ভর করে আপনার ফাউন্ডেশন কেমন কাভারেজ দেয় তার ওপর। ফাউনডেশন লাগানোর পর যদি দাগ বা চোখের নিচের কোন কালি চোখে পরে তবে কন্সিলার ব্যবহার করুন।

যদি আপনি স্টিক কন্সিলার ব্যবহার করেন তবে যেই জায়গায় দাগ আছে, শুধুমাত্র সেই দাগের উপর কন্সিলার ব্যবহার করুন। যেহেতু এই ধরনের কন্সিলার বেশ ঘন হয়, এর ওপর ফাউন্ডেশন দেওয়ার সময় বেশি জোরে স্ট্রোক দেবেন না, এতে কন্সিলার মুছে হালকা হয়ে যায় আর আবার দাগ দেখা যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

লিকুইড বা ক্রিম কন্সিলার বেশ হালকা টেক্সচার এর হয়ে থাকে তাই সহজে মুছে যেতে পারে। এই ক্ষেত্রে আগে ফাউন্ডেশন এবং পরে কন্সিলার ব্যবহার করুন। কন্সিলার ব্রাশের সাহায্যে আলতো করে চেপে চেপে বসিয়ে ব্লেন্ড করে নিন।

চোখের নিচের কালি বা পিম্পল এর স্পট ঢাকার ক্ষেত্রে প্রথমে ফাউন্দেশন খুব সামান্য পরিমাণে নিন, ব্রাশের সাহায্যে লাগিয়ে নিন। অনেক সময় ফাউন্ডেশন লাগানোর পরে দাগ গুলো আরও বেশি বোঝা যায়। এই টিপসটি ব্যবহার করে আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন যে কোন অংশে কন্সিলার ব্যবহার করতে হবে। কারণ পুরো মুখে যেই রঙটি মানিয়ে যায়, দাগ ছোপ গুলোর জন্য তার চেয়ে হালকা রঙের কন্সিলার ব্যবহার করলে আরও বেশি ফ্যাকাসে দেখায়। ত্বকের রঙের চেয়ে এক শেড হালকা বা গাঢ় নয়, বরং ত্বকের সঙ্গে মিলে এমন কন্সিলার বেছে নিন।

Share This Post

Post Comment